চোদন পিয়াসি সৎ মা

রাতের ঘড়ি তার ডং ডং শব্দের সবটুকু দিয়ে জানিয়ে দিল যে বারোটা বেজে গেছে। অনন্যার যেন আর তর সইছেনা। ডিম লাইটের আবছা আলো ছড়ানো ঘরে বিছানায় উপর হয়ে শুয়ে থাকা সৌম্যর পাশে গিয়ে বসল সে। অনন্যার পরনে শর্ট শেপের হালকা বেগুনী কালারের বেবীডল নাইটি। স্প্যাঘেতি স্ট্র্যাপের ডীপ ক্লীভেজ দেয়া ঝুল কম নাইটিটি হাঁটুর অনেকখানি উপরে উঠে অনন্যার মাখন মাখন সেক্সি থাইয়ের জানান দিচ্ছে। কড়া পারফিউমের সাথে স্বচ্ছ নাইটির ভেতর রেড কালারের ব্রা-প্যান্টি পড়ে অনন্যা যেন সাক্ষাত কাম দেবি। কামাদ্দিপ্ত চোখে সৌম্যর দিকে কিছুক্ষন তাকিয়ে থেকে কি যেন ভাবল, তারপর উঠে গিয়ে সৌম্যর পাশে গা এলিয়ে শুয়ে পড়লো।

Advertisements

মাসীর বিশাল পাছা চোদা

সেবার আমি কলেজে ফইনাল পরীক্ষা দেবার পর ভাবছিলাম কি করি, তখন একদিন মনে হলো যাই ঘুরে আসি খামার বাড়ি থেকে সহরে আমাদের ছিলো ফ্লাট বাড়ি,choda chudi আমাদের দুটো গাড়িও ছিলো মা ,অববা দুজনেই ভালো চাকরি করত, তাই আমরা বেশ অবস্থাপন্ন ছিলাম বলা যেতে পারে। আমি একটা গাড়ি নিয়ে হাজির হলাম গ্রামের বাড়িতে/ ওখানে লোক রাখা ছিল যারা সারা বছর দেখাশোনা করত তাদেরকে আমি সোনা মেসো আর নোনা মাসি বলে ডাকতাম ।choti সোনা মেসোর বয়স কত আমি জানি না,তবে নোনা মাসির বয়স প্রায় ৩৫/৪০ হতে পারে /তাদের দুই ছেলে মেয়ে

আপুকে চোদার মজা

আপু আমার বাড়ার মাথায় একটা কিস করলেন। আমি তো পুরা হাঁ। এ তো দেখি মেঘ না চাইতেই হারিকেন। এরপর আপু আগা থেকে গোড়া, সবজায়গায় কিস করলেন। আমি একটু কাঁপছিলাম। জীবনের প্রথম কোন মেয়ে আমার পুরুষাঙ্গে মুখ দিল, ধরল। কিস করা শেষ করে আপু জিজ্ঞেস করলেন, “ভালো লেগেছে??” আমি কোনমতে বললাম, “হুমম” আপু বললেন, “আরো চাস?” আমি বললাম, “প্লীজ” আপু তার বিখ্যাত বাড়া খাড়া করা হাসি দিয়ে আমার বাড়া চাটা শুরু করলেন। পুরোটা বাড়া। কোন অংশ বাদ পড়ছে না। কিছুক্ষ্ণণ বাড়া চাটার আমার বিচির দিকে মনোনিবেশ করলেন। একটা বিচি চটকান, আরেকটা চাটেন। পারমুটেশন কম্বিনেশন করে কয়েকবার চাটাচাটি আর চটকাচটকির পর আবার বাড়া চাটা শুরু করলেন। দুই তিন বার চাটার পর বাড়াটা নিজের দুই গালে ঘসলেন। তারপর আমার পুরো বাড়ার মাথাটা ক্লকওয়াইজ নিজের মুখের চারদিকে ঘুরালেন, কিছুক্ষণ বাড়ার গন্ধ শুঁকলেন। এরপর উনি যে কাজটা করলেন ওইটার জন্য আমি আজীবন সুমাইয়া আপুর প্রতি কৃতজ্ঞ থাকব।